বন্ধুমহল বা ঘরোয়া আড্ডায় চা হলো একটি জনপ্রিয় পানীয়। সারা দিনের ক্লান্তি দূর করে দিতে চায়ের জুড়ি নেই। চা যদি পানই করতে হয়, তবে গ্রিন টি কেন নয়? গ্রীন টি এমন এক ধরনে চা যা খেলে শুধু মেদ নয় শারীরিক অনেক সমস্যার সমাধান হয়। এমনকি ত্বক, চুল এবং শরীরকে ফিট রাখতে এই চা অনেক বেশি কার্যকরী। তবে একটি কথা শুনলে আপনি নিজেও অবাক হবেন যে, সেটি হলো আগে ভারত এটিকে ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করতো।

ডায়েট শুরু করলেই আমরা প্রথমে গ্রীন টির নামটা শুনি। প্রতিদিন ২-৩ কাপ গ্রীন টি খেতে পারেন। গ্রীন টিতে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা শরীরকে সতেজ রাখতে সাহায্য করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, ক্যানসার প্রতিরোধ করে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে। গ্রীন টি হজম প্রক্রিয়া বাড়িয়ে শরীরের অতিরিক্ত মেদ ঝরাতে সাহায্য করে। তাই জেনে নেয়া যাক গ্রীন টির অসাধারন কিছু স্বাস্থ্য গুণ–

১. ওজন কমায়- মোটামুটি আমরা সবাই জানি ওজন কমাতে এবং শরীর ফিট রাখতে গ্রীন টির কোন জুড়ি নেই। প্রতিদিন নিয়ম করে গ্রীন টি পান করলে দেহে অতিরিক্ত চর্বি জমতে পারে না। ওজন নিয়ে আমরা সবাই কমবেশি দুঃচিন্তায় আছি। ইদানিং আমরা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে খাদ্য তালিকায় গ্রীন টি রাখতে পছন্দ করি।

২. ত্বকের যত্নে- গ্রীন টিতে রয়েছে এক ধরনের এন্টি অক্সিডেন্ট যা বয়সের ছাপকে দুরে রেখে তারুণ্যকে বজায় রাখতে সহায়তা করে। গ্রীন টি ত্বক ও চুলকে সুন্দর এবং সতেজ রাখতে সাহায্য করে। এটি কেবল ত্বকে সুন্দরই করে না, পাশাপাশি ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে, ব্রন, ত্বকের শুষ্কতা, ফেটে যাওয়া রোধ করে এবং ত্বকের গ্লোয়িং করে তুলে।

৩. ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়- অনেক গবেষণায় দেখা গেছে গ্রীন টি ক্যান্সারের ঝুকি কমাতে সহায়তা করে। আর এটি হলো গ্রীন টির সব থেকে বড় গুন। যেমন স্কিন ক্যান্সার, ব্রেস্ট ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার, গলব্লাডার ক্যান্সার ইত্যাদি। গ্রীন টি শরীরে ক্যান্সারকে ছড়িয়ে পড়তে বাধা দেয়।

৪. ব্রেনকে ঠাণ্ডা রাখে- গ্রীন টি ব্রেনের রক্ত সঞ্চালনকে স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। ব্রেনের অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন কাজকে নিয়ন্ত্রণ করে আমাদের দেহকে সুস্থ রাখে গ্রীন টি।

৫. দাঁতের যত্ন- বিভিন্ন তথ্য থেকে জানা গেছে গ্রীন টি মুখের ভেতর ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে দাঁত ভালো থাকে এবং ব্যাকটেরিয়াজনিত কারণে আমাদের মুখে যে দুর্গন্ধ হয় তা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এবং দাঁতের ক্ষয় রোধ করে গ্রীন টি।

৬. ডায়োবেটিস- আপনি যদি প্রতিদিন গ্রীন টি পান করেন তাহলে ডায়াবেটিসের মত রোগকেও নিয়ন্ত্রণ করা যায়। গ্রীন টি রক্তে গুলকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।

৭ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ- নিয়মিত গ্রীন টি খেলে সহজেই রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। উচ্চ রক্তচাপের ঝুকি কমাতে গ্রীন টি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে।

৮. বিষণ্ণতা দুর করে- গ্রীন টি আপনাকে বিষণ্ণতা থেকে মুক্তি দেবে। গ্রীন টিতে রয়েছে আমিনো অ্যাসিড যা আপনার মনকে চাঙ্গা রাখবে।

৯. হার্ট সুরক্ষা- হার্টকে যদি সুস্থ রাখতে চান তাহলে প্রতিদিনকার ডায়েট চার্টে রাখুন গ্রীন টি। গ্রীন টি হার্টকে স্ট্রোকের হাত থেকে রক্ষা করে। গ্রীন টি হার্টকে নানা রকম ক্ষতিকারক দিক থেকে রক্ষা করে ফলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি হ্রাস করে।

১০. কোলেস্টেরল- গ্রীন টি রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল হ্রাস করে এবং ভালো কোলেস্টেরল দ্বারা খারাপ কোলেস্টেরলকে উন্নত করে ফলে মৃত্যু ঝুঁকি কমে।

১১. ডিপ্রেশন দূর করে- প্রাকৃতিক থিনানিন নামের অ্যামাইন এসিড পাওযা যায় গ্রীন টিতে। যা দুশ্চিন্তা ও হতাশা থেকে মানুষকে সাহায্য করে।

একটি উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে