সন্দ্বীপ পৌরসভা ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লিগের জাতীয় শোক দিবস পালন

0

বাদল রায় স্বাধীন

বঙ্গবন্ধুর ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উদযাপন করেছে সন্দ্বীপ পৌরসভা ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলিগ। এ উপলক্ষে গতকাল ২৯ আগষ্ট মোমেনা সেকান্দর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে আসন অলংকৃত করেছেন পৌরসভা আওয়ামীলিগ সভাপতি ও বিশিষ্ট্য সমাজ সেবক মোক্তাদের মাওলা সেলিম।

প্রধান বক্তা ছিলেন পৌরসভা আওয়ামীলিগের সাধারন সম্পাদক সফিকুল মাওলা, প্রধান আলোচক ছিলেন পৌরসভা আওয়ামীলিগের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রভাষক ফসিউল আলম ফছি। সভায় সভাপতিত্ব করেন ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলিগ সভাপতি আব্দুল বাতেন।

অনুষ্ঠান সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলিগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মহব্বত।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনাচরন উল্লেখ সহ দেশ মাতৃকা রক্ষায় ছোটবেলা থেকে টুঙ্গী পাড়ার খোকা থেকে এশিয়ার লৌহমানবে পরিনত হওয়ার কন্টকাকীর্ন রাজনৈতিক জীবনের উপর বক্তব্য রাখেন -পৌরসভা আওয়ামীলিগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মোঃ ওমর ফারুক, ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলিগের সাধারন সম্পাদক দিদার বাঙ্গালী,পৌরসভা আওয়ামীলিগের দপ্তর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম,পৌর কমিশনার আলাউদ্দীন বাবলু,আওয়ামীলিগ নেতা মাষ্টার নাছির উদ্দিন, পৌরসভা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মাকছুদের রহমান জাবেদ, পৌরসভা ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সাল উদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা চন্দন মজুমদার প্রমুখ।

প্রধান অতিথি পৌরসভা আওয়ামীলিগ সভাপতি মোক্তাদের মাওলা সেলিম ১৫ আগষ্টের দিনটিকে বাঙালি জাতির ইতিহাসের এক কলঙ্কিত অধ্যায় উল্লেখ করে বলেন দেশের স্বাধীনতাবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে ঘাতকচক্রের হাতে ধানমন্ডির নিজ বাসভবনে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান শহীদ হন। একই সাথে শহীদ হন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব, পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশুপুত্র শেখ রাসেলসহ অনেক নিকট আত্মীয়। এ নৃশংস ঘটনা কেবল বাংলাদেশের ইতিহাসে নয়, পৃথিবীর ইতিহাসেও বিরল।তাই আমরা বাকি ঘাতকদের দৃস্টান্ত মুলক শাস্তির পাশাপাশি অন্য ঘাতক তৈরি হতে যাতে না পারে সে ব্যপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।

অন্যান্য বক্তারা বলেন বঙ্গবন্ধু সহ সকল নেতাকে হারানোর শোককে শক্তিতে রূপান্তর করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে আমাদের আত্মনিয়োগ করতে হবে।কারন ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তার স্বপ্ন ও আদর্শের মৃত্যু ঘটাতে পারেনি।বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ এবং তিতিক্ষার দীর্ঘ সংগ্রামী জীবনাদর্শ ধারণ করে সবাই মিলে একটি অসাম্প্রদায়িক, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বানও জানান বক্তারা

একটি উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে